ব্রেকিং নিউজ

x


হাজীগঞ্জে গ্রেপ্তারকৃত দূর্ধর্ষ ৪ চোরকে জেল হাজতে প্রেরন

বুধবার, ১৭ জুন ২০২০ | ৪:২৯ অপরাহ্ণ

হাজীগঞ্জে গ্রেপ্তারকৃত দূর্ধর্ষ ৪ চোরকে জেল হাজতে প্রেরন

হাজীগঞ্জে এক রাতে দুটি দূর্ধর্ষ চুরির ঘটনা ঘটেছে। গতকাল ১৭ জুন গভীর রাতে প্রথমে বাকিলা বাজারে পরে পৌর এলাকার এনায়েতপুর বাসস্ট্যান্ড এর যাত্রী চাউনির দোকানটি চুরির হয়।

তথ্য সুত্রে জানাযায়, রাত সাড়ে ১২টার দিকে এনায়েতপুর বাসস্ট্যান্ড যাত্রী চাউনির মো. মহসীন বেপারীর দোকানটিতে চুরি করা অবস্থায় স্থানীয়রা ৪ চোরকে আটক করে হাজীগঞ্জ থানা পুলিশকে খবর দেয়। পরে থানা পুলিশ এসে দূর্ধর্ষ ৪ চোরকে মালামালসহ গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যায়।

স্থানীয়রা জানান, মো. মহসীন বেপারীর দোকানটিতে আরো ৭/৮ বার চুরির ঘটনা ঘটেছে।

গ্রেপ্তারকৃত ৪ চোর হলো, কুমিল্লা সদর দক্ষিন থানার উলুইন উত্তর পাড়া নতুন বাড়ীর মো. মমিন হোসেন এর ছেলে মো. জয়নাল আবেদীন (৩৫),  কুমিল্লা দাউদকান্দি উপজেলার রায়পুরা দক্ষিন পাড়া ভুইয়া বাড়ীর মো. শফিক মিয়ার ছেলে মো. শামীম মিয়া (২২), চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার পনশাহী গ্রামের দক্ষিন পাড়া ভুইয়া বাড়ীর  মৃত রবিউল মিয়ার ছেলে মতিন মিয়া (২৫) এবং কুমিল্লা কোতয়ালী থানার হাউজিং এষ্টেট এর বুড়ীর বাড়ীর মৃত সিরাজ মিয়ার ছেলে মো. শফি (২৮)।

তাদের সাথে থাকা আরো ২/৩জন চোর পুলিশের টের পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।

হাজীগঞ্জ থানার ওসি মো. আলমগীর হোসেন জানান,  গ্রেপ্তারকৃত ৪ চোরের সাথে থাকা একটি মাইক্রোবাস ঢাকা মেট্রো-চ-51-1627), কাটার যন্ত্র একটি ও চোরাই মারামালসহ গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতদের মামলা দিয়ে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

এ ছাড়াও একই রাতে হাজীগঞ্জের বাকিলা বাজারে অভিনব কায়দায় বিসমিল্লাহ্‌ ভ্যারাটিজ স্টোরের মালামালসহ নগদ অর্থ চুরি হওয়ার ঘটনা ঘটে। ১৭ জুন বুধবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও থানা পুলিশ।

এর আগে প্রতিষ্ঠানের মালিক স্বর্না গ্রামের প্রয়াত মুক্তিযুদ্ধা আবুল বাশারের ছেলে মো. হাছান মিজি (৩৬) তার দোকানের শাটার খুলে দেখে বিভিন্ন মালামাল এলোমেলো ভাবে পড়ে আছে। ক্যাশবাক্স খোলা, সিসি ক্যামরার মূখে কাগজ ও কাপড় দিয়ে প্যাঁচানো, তাকে থাকা বেনসন ও গোল্ডলিপ সিগারেটের স্টোক কাটুন সব খালি। তখন তিনি দোকানের মাঝামাঝি স্থানে গিয়ে দেখে দোকানের টিন কেটে চোরের দল মূল্যবান মালামাল, ট্রেড লাইসেন্স, কাগজপত্র, কারেন্ট বিল, বিকাশ ও মোবাইল রিচার্জের কার্ড, ব্যাংক চেকবইসহ নগদ প্রায় কয়েক লক্ষ টাকা চুরি করে নিয়ে যায়।

খবর পেয়ে বাকিলা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম ঘটনাস্থলে এসে চুরির আলামত দেখেন এবং বাজারের নাইট গার্ড শুকু মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও থানা পুলিশকে খবর দেন।

বিসমিল্লাহ্‌ ভ্যারাটিজ স্টোরের সত্ত্বাধিকারী মো. হাছান মিজি বলেন, করোনা কালে দোকান তাড়াতাড়ি বন্ধ হয়ে যায়। মঙ্গলবার রাতে যে কোন সময় পাশের সেলুনের দোকানে ঢুকে আমার দোকানে টিন কেটে ঢুকেছে। আমার মূল্যবান কাগজপত্র, জমানো দামি সিগারেটের কাটুন, বিকাশ ও লোডের কার্ড এবং নগদ অর্থসহ প্রায় ১৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন হয়েছে। এর আগেও তিনবার এভাবে চুরি হয়েছে।

বাকিলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান ইউসুফ পাটওয়ারী বলেন, পুলিশ এসে আলামত দেখেছে, আমিও পরিদর্শন করে সিসি ক্যামরার ফুটেজ দেখেছি। দোকানের সব মূল্যবান জিনিষপত্র চুরি হয়েছে, প্রশাসনিক ভাবে চেষ্টা থাকবে সহযোগিতার।

বাংলাদেশ সময়: ৪:২৯ অপরাহ্ণ | বুধবার, ১৭ জুন ২০২০

protidin-somoy.com |

Development by: webnewsdesign.com