ব্রেকিং নিউজ

x


নিরাপদ খাদ্য হুমকিতে, হোটেল-রেস্তোরাঁয় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ

রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২ | ৭:৫৯ পূর্বাহ্ণ

নিরাপদ খাদ্য হুমকিতে,  হোটেল-রেস্তোরাঁয় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ

ফুড লাভারস, প্রিন্স হোটেলসহ হাজীগঞ্জে ৫টি খাবার হোটেলে ৭৫ হাজার টাকার জরিমানা

রাজধানীসহ দেশের নামী-দামী অভিজাত হোটেল রেস্তোরাঁ গুলোতে নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, দিন দিন মান কমছেই, নিরব নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ। এমন পরিস্থিতিতে নিরাপদ খাদ্য হুমকিতে রয়েছে।

এক বছর আগে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের (বিএসএফএ) পরিদর্শক টিম সরেজমিন পরিদর্শন করে খাবারের মান, রান্নার পরিবেশ, পণ্যের মান, পরিবেশনা, পরিবেশনকারীর ও অবকাঠামোগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতাসহ আরও কিছু বিষয় বিবেচনা করে তাদের ‘এ প্লাস’ গ্রেডিংয়ের সনদ দিয়েছিল। অর্থাৎ তারা ১০০ নম্বরের মধ্যে ৯০-এর বেশি পেয়েছিলেন।

 

কিন্তু সনদ পাওয়ার পর নামী-দামী অভিজাত হোটেল রেস্তোরাঁ গুলো সুনাম ধরে রাখতে পারেনি। যেসব বিষয় বিবেচনা করে তাদের ‘এ প্লাস’ দেওয়া হয়েছিল তার প্রায় সবকটির মান নিচে (খারাপ) নেমে গেছে। বিএসএফএর পরিদর্শক টিম সম্প্রতি ওই প্রতিষ্ঠানে আবারও ঝটিকা পরিদর্শনে গিয়ে এমন চিত্র পেয়েছে। ফলে তাদের এক ধাপ নিচের গ্রেডিং ‘এ’ দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ তারা এবার ১০০ নম্বরের মধ্যে ৮৪ পেয়েছেন।

প্রায় অভিন্ন চিত্র বেইলি রোডের আরেক নামকরা ফাস্টফুডের দোকান ‘পিজা হাট’-এরও। গত বছর পিজা হাট ‘এ প্লাস’ গ্রেডিংয়ের সনদ পেলেও এ বছর পেয়েছে শুধু ‘এ’। এ চিত্র শুধু বেইলি রোডের নয়, রাজধানীর খিলগাঁও তালতলা, পুরানা পল্টন, নয়া পল্টনসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার নামিদামি হোটেল-রেস্তোরাঁর। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রাজধানীসহ দেশের খাবারের হোটেল-রেস্তোরাঁগুলোর মান দিন দিন খারাপ হচ্ছে।

পোড়া তেল (একই তেল বারবার ব্যবহার) দিয়ে রান্না করা হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের খাবার। নোংরা পরিবেশে মানহীন খাবার তৈরি করছেন অপরিষ্কার শরীরের হোটেল শ্রমিকরা। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে প্রাথমিক ধারণা নেই অধিকাংশ হোটেল ও রেস্তোরাঁ শ্রমিকের। ফলে নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বানানো এসব খাবার দেদার বিক্রি হচ্ছে দেশের নামিদামি রেস্তোরাঁগুলোয়। এসব মানহীন খাবার খেয়ে বাড়ছে মানুষের রোগবালাই। নতুন নতুন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে হাজারো মানুষ।

এ দিকে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ বাজারের ৫টি খাবার হোটেলে নগদ ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করেছেন, ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রাশেদুল ইসলাম। ৩১ জুন বৃহস্পতিবার বিকালে তিনি বাজারের বিভিন্ন হোটেল ও রেস্টুরেন্টে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন।

এ সময় অবস্থাপনার দায়ে বাজারের প্রিন্স হোটেল ২০ হাজার, আল মদিনা হোটেল ১৫ হাজার, নিউ তৃপ্তি হোটেল ১৫ হাজার, গাউছিয়া হাইওয়ে হোটেল ১০ হাজার ও ফুড লাভারস কর্তৃপক্ষকে ১৫ হাজার টাকাসহ মোট ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রাশেদুল ইসলাম।

ভ্রাম্যমান আদালত সূত্রে জানা গেছে, এদিন বিকালে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনাকালীন সময়ে হোটেলের রান্নাঘরে তেলাপোকা, ড্রেনে মুরগীর চামড়া, নাড়িভুড়ি, ফ্রিজে কাঁচা মাংস আর রান্না করা মাংস, বাটা মশলা, দই, ফ্রাই, ছানা, তরকারীসহ বিভিন্ন অব্যবস্থাপনা দেখতে পান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

তাই প্রিন্স হোটেল ২০ হাজার, আল মদিনা হোটেল ১৫ হাজার, নিউ তৃপ্তি হোটেল ১৫ হাজার, গাউছিয়া হাইওয়ে হোটেল ১০ হাজার ও ফুড লাভারসে ১৫ হাজার টাকাসহ মোট ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় এবং হোটেল কর্তৃপক্ষকে বিভিন্ন দিক-নির্দেশনা প্রদান করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

এ সময় উপজেলা স্যানেটারী পরিদর্শক মো. সামছুল ইসলাম রমিজ, হাজীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আব্দুল আজিজসহ অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, করোনা মহামারির মধ্যে সবকিছুর মতো গ্রেডিং নির্ধারণের কাজেও শিথিলতা আসে। করোনার পর গ্রেডিংয়ের বিষয়ে আবারও সক্রিয় হয়ে ওঠেন সরকারি প্রতিষ্ঠান নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ। প্রতিষ্ঠানটি ২০২১-২২ অর্থবছরে রাজধানীর আগের গ্রেডিংকৃত ৪০টি হোটেল-রেস্তোরাঁ, ফাস্টফুড ও মিষ্টির দোকান পুনঃপরিদর্শন করে।

এতে দেখা গেছে, খাবারের মান, রান্নার পরিবেশ, পণ্যের মান, পরিবেশনা, পরিবেশনকারীর ও অবকাঠামোগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতাসহ অন্যান্য বিষয়ে মান খারাপ হয়েছে ১৩টি প্রতিষ্ঠানের। আগের মতোই আছে অর্থাৎ কোনো উন্নতি হয়নি ২০টির এবং খারাপ অবস্থা থেকে উন্নতি হয়েছে সাতটি প্রতিষ্ঠানের।

৩১ জুন নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সম্মেলন কক্ষে মূল্যায়নকৃত খাদ্য স্থাপনার গ্রেড প্রদান অনুষ্ঠানের এসব হোটেল-রেস্তোরাঁ, ফাস্টফুড ও মিষ্টির দোকানকে নতুন করে গ্রেডিং সনদ প্রদান করে বিএসএফএ। বিএসএফএর সদস্য শাহনেওয়াজ দিলরুবা খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত সচিব) মো. আবদুল কাইউম সরকার। যাদের মান খারাপ হয়েছে অনুষ্ঠানে তাদের দেড় মাসের সময়সীমা বেঁধে দিয়েছেন নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ। আসছে আগস্টের মাঝামাঝি এসব হোটেল-রেস্তোরাঁ সরেজমিন পরিদর্শন করবে প্রতিষ্ঠানটির পরিদর্শক টিম।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সভাপতি ওসমান গনি বলেন, ‘আমরা আমাদের হোটেল-রেস্তোরাঁগুলোয় শতভাগ নিরাপদ খাবার সরবরাহ করতে চাই। কিন্তু আমাদের হোটেল শ্রমিকরা যেহেতু স্বল্পশিক্ষিত বা কেউ কেউ লেখাপড়াহীন- তাদের এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিতে হবে। যেহেতু তারাই হোটেলগুলোয় খাবার তৈরি ও সরবরাহ করেন।

প্রায় অভিন্ন দাবি জানান ঢাকা মহানগরী উত্তরের হোটেল-রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান চৌধুরী বিপু। তিনি বলেন, ‘সরকার যদি শতভাগ নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে চায় তাহলে অবশ্যই হোটেল শ্রমিকদের পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ দিতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। তারা যখন বুঝবেন এটা মানুষের জন্য ক্ষতিকর তখনই শতভাগ নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত হবে।

মানুষ যেন জেলা শহরগুলোয় গেলেই জানতে পারে কোন হোটেল-রেস্তোরাঁয় নিরাপদ খাবার পাওয়া যাবে। পর্যায়ক্রমে জনসচেতনতা, পরিদর্শন ও মনিটরিং ব্যবস্থা, প্রশিক্ষণ কার্যক্রম এবং ভেজালবিরোধী অভিযান আরও জোরদার করা হবে। বিএসএফএ সূত্র জানিয়েছেন, করোনা মহামারি শুরুর আগে ২০১৯ সালে রাজধানীসহ আশপাশের হোটেল-রেস্তোরাঁগুলোর মান নির্ধারণ কাজ শুরু করেছিলেন খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ। প্রথম পর্যায়ে রাজধানীর ৫৭টি হোটেল-রেস্তোরাঁকে গ্রেডিং পদ্ধতির আওতায় আনা হয়। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ‘এ প্লাস’ পেয়েছিল ১৮টি এবং ‘এ’ গ্রেড ৩৯টি।

রাজধানীর ২০০ হোটেল-রেস্তোরাঁ থেকে এগুলোকে নির্বাচিত করা হয়েছিল। খাবারের মান, রান্নার পরিবেশ, পণ্যের মান, পরিবেশনা, পরিবেশনকারীর ও অবকাঠামোগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতাসহ আরও কিছু বিষয় বিবেচনায় নিয়ে এ গ্রেডিং করা হয়। এ ক্ষেত্রে ‘এ প্লাস’, ‘এ’ ছাড়াও ‘বি’ ও ‘সি’ ক্যাটাগরিও রয়েছে।

 

নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, খাবারের মান, বিশুদ্ধতা, পরিবেশ, ডেকোরেশন, মনিটরে রান্নাঘরের পরিবেশ দেখা যাওয়ার ব্যবস্থা ও ওয়েটারদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার ভিত্তিতে রেস্তোরাঁগুলোকে চার ক্যাটাগরিতে চিহ্নিত করা হয়েছে।

যেসব হোটেল-রেস্তোরাঁ ৯০ নম্বরের বেশি স্কোর পাবে তারা ‘এ প্লাস’, স্কোর ৮০-এর ঊর্ধ্বে হলে ‘এ’, ৫৫ থেকে ৭৯ পর্যন্ত স্কোর হলে ‘বি’ এবং ৪৫ থেকে ৫৫ স্কোর হলে ‘সি’ ক্যাটাগরির অন্তর্ভুক্ত হবে।

 

এ প্লাস পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো উত্তম মানের এবং এ গ্রেড প্রতিষ্ঠানগুলোকে ভালো মানের হোটেল হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এসব হোটেলের সামনে ‘এ প্লাস’ হলে সবুজ, ‘এ’ হলে নীল, ‘বি’ হলে হলুদ এবং ‘সি’ হলে কমলা রঙের স্টিকার লাগানো থাকবে।

কমলা রঙের স্টিকার দেখলে বুঝতে হবে হোটেলটি অনিরাপদ। এ হোটেলকে এক মাসের মধ্যে মান ভালো করতে হবে। না হলে হোটেলের লাইসেন্স বাতিল করা হবে। অন্যদিকে হলুদ স্টিকারধারী রেস্তোরাঁকে তিন মাসের সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়।

 

এ সময়ের মধ্যে তাদের মান ও গ্রেড উন্নত করতে হবে। অন্যথায় তাদের লাইসেন্স বাতিল করা হবে। যারা রেস্তোরাঁয় খাবার খেতে যাবেন তারা প্রবেশের সময় স্টিকার দেখেই জানতে পারবেন, এ হোটেল খাবারের জন্য কতটা স্বাস্থ্যসম্মত, রান্নাঘরের অভ্যন্তরের পরিবেশ কেমন ইত্যাদি।

 

বাংলাদেশ সময়: ৭:৫৯ পূর্বাহ্ণ | রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২

protidin-somoy.com |

Development by: webnewsdesign.com